মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

খাল ও নদী

নদীর নাম:-

 মুহুরী নদী

 

ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যে অবস্থিত পর্বত শ্রেণিতে ২৩°২০´ উত্তর অক্ষাংশ ও ৯১°৪৭´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশে উৎপন্ন হয়ে ফেনী নদী রামগড় পর্যন্ত দক্ষিণ পশ্চিম দিকে প্রবাহিত হয়ে ত্রিপুরা রাজ্য ও পার্বত্য চট্টগ্রামের মধ্যে সীমান্তরেখা এঁকে দিয়েছে। পরে পশ্চিম দিকে আলীগঞ্জ পর্যন্ত প্রবাহিত হয়ে ত্রিপুরা ও চট্টগ্রামের মধ্যকার সীমানা রচনা করেছে। এরপর পাহাড়ি নিবাস ত্যাগ করে নোয়াখালী জেলা থেকে চট্টগ্রামকে বিভক্তকারী এই নদী সমভূমি ধরে প্রবাহিত হয়ে ২২°৫০´ উত্তর অক্ষাংশ ও ৯১°২৭´ পূর্ব দ্রাঘিমাতে বঙ্গোপসাগরে পতিত হয়েছে। চট্টগ্রাম, নোয়াখালী ও ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের মধ্যে সীমানা চিহ্নিতকারী ফেনী নদী বাংলাদেশের অন্তর্গত। কিন্তু ১৯৬০ সাল থেকে ভারত সরকার নদীটির মধ্যভাগ পর্যন্ত নিজেদের দাবি করে আসছে। উৎসমূল থেকে বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত এটির দৈর্ঘ্য ১১৫.৮৫ কিমি। বঙ্গোপসাগর থেকে রামগড় পর্যন্ত ৮০.৪৫ কিমি অংশ সারা বছর ছোট নৌকা চলাচলের উপযোগী। বর্ষাকালে নদীটি কানায় কানায় ভরে ওঠে এবং ভারি বর্ষণের পর প্রবল স্রোত আর ঘূর্ণিপাকে ফেনী নদীর প্রতিটি বাঁক প্রমত্ত ও উত্তাল হয়ে ওঠে। নোয়াখালী জেলার মুহুরী নদী, যা ছোট ফেনী নদী নামেও পরিচিত, ফেনী নদীর মোহনায় এসে মিলিত হয়েছে।এবং এটি পড়েছে সন্ধীপ চ্যানেল হয়ে বঙ্গোপসাগরে পড়েচে।

ছবি


সংযুক্তি



Share with :

Facebook Twitter